ঝালকাঠিতে ভ্রাম্যমান আদালতে পল্লি চিকিৎসক সালাহউদ্দিনকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা

ঝালকাঠিতে ভ্রাম্যমান আদালতে পল্লি চিকিৎসক সালাহউদ্দিনকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা

ঝালকাঠি প্রতিনিধি :
ঝালকাঠির রাজাপুরে উপজেলা প্রশাসনের অভিযানে একজন ভূয়া চিকিৎসক ও তার সহযোগী আটকের ঘটনা ঘটে৷ রাজাপুর উপজেলার কানুদাসকাঠি এলাকার নিজ ভবন থেকে রোগী দেখার সময় সালাউদ্দিন নামের এক ভূয়া চিকিৎসক ও তার দুইজন সহযোগীককে আটক করেছে উপজেলা প্রশাসন। সোমবার সকালে উপজেলা প্রশশাসনের বিশেষ এক অভিযানে ভুয়া ডাক্তার সালাহউদ্দিনকে আটক করে। এ বিষয় স্থানীয় সূত্রে জানাযায় এক সময়ের টিভি ও রেডিও ঠিক করতেন মেকারি কাজ করতেন সালাউদ্দীন। মেকার হলেও সে এখন ডাাক্তার। তার বাড়ীতে দুইতলা বিশিষ্ট ভবনের নিচতলায় বসে সে প্রতিদিন রোগী দেখেন। বর্তমানে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা করেন ও চিকিৎসা পত্র দেন এবং তিনি অ্যান্টিবায়োটিক ঔষধ নিজেই সরবরাহ করেন এছাড়াও নিজেই প্রেসক্রিপশন করেন।

পল্লি চিকিৎসক সালাউদ্দিন

এ বিষয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে একটি পোষ্ট দেয়া হলে বিষয়টি রাজাপুর উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসে রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.সোহাগ হাওলাদারের। তিনি বিষয়টি নিয়ে ঐ এলাকায় খোঁজ খবর নিয়ে ঘটনার সত্যতা জানতে পেরে সোমবার দুপুরে এক বিশেষ অভিযান পরিচালনা করার মাধ্যমে উপজেলার কানুদাসকাঠি এলাকার নিজ বাসবভন থেকে রোগী দেখার সময় সালাউদ্দিন মেকার নামের এক ভুয়া চিকিৎসক সহ তার কম্পাউন্ডার কবির পল্লান ও নজরুল ব্যাপারীকে আটক করে।
এ বিষয় রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহাগ হাওলাদারের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, সালাউদ্দিন একজন পল্লীি চিকিৎসক এবং তার ঔষধ বিক্রির ( লাইসেন্স ) অনুমোদন আছে। কিন্তু এর পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন রোগীকে চিকিৎসার জন্য এন্টিবায়টিক ঔষধ লিখে ব্যবস্থাপত্র দিতেন। একজন পল্লী চিকিৎসক কখনও এন্টিবায়টিক ঔষধ লিখে ব্যবস্থাপত্র দিতে পারেন না। পল্লী চিকিৎসক হয়ে এন্টিবায়টিক ঔষধ লিখে ব্যবস্থাপত্র দেয়ার অপরাধে সালাউদ্দিনকে ২ লক্ষ টাকা ও তার দুই সহযোগীকে ২৫হাজার টাকা করে ৫০হাজার টাকা সহ মোট ২লক্ষ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই সাথে চিকিৎসা ক্ষেত্রে কোন ব্যবস্থাপত্র দেবনা মর্মে সালাউদ্দিন মুছলেকা প্রদান করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536